views your Language

সোমবার, ৬ জুন, ২০১৬

ধর্ষণ নয়,একটি হত্যা মামলা (দ্বিতীয় খন্ড)

তার মামা বলে,চিৎকার করে কোন লাভ নাই। বরং তোমারেই ক্ষতি! এই কথা লোকজন জানলে তোমার সম্মান নষ্টহবে,তোমাকে কেউ বিয়ে করতে চাইবে না। তাছাড়া তোমার কথা কেউ বিশ্বাস করবে না। আমি তোমার মামা, লোকজন ভাববে এটা তোমার সাজানো নাটক!তুমি আমার কাছথেকে টাকা নেয়ার কারনেই এই নাটক করেছো। মামার কথা শুনে সাম্মির মৃদ কন্ঠে কাদতে থাকে। তা দেখে মামার করুনা না হয়ে আরও দ্বিগুণ গতিতে কামশক্তি জেগেউঠে। হাতের কাছে একটা গামছা দেয়ে সাম্মির মূখ বেধে দেয়। মূখ বাধার কারনে সাম্মি এবার কথা বলতে পারছে না,কিন্তু হাত-পা দিয়ে নিজেকে বাচাঁনোর চেষ্টা করছে, এটাদেখে তার মামা সাম্মির নিজের ওড়না দিয়ে হাত-পা বেধে ফেল্লো। এরপর যা হবার তাই হচ্ছে! সাম্মি চিৎকার করতে পারছে না,না পারছে হাত-পা ছুটা ছুটি করতে, যাতে করে কেউ তাকে বাচাঁনোর জন্য এগিয়ে আসে। কিন্তু না কেউ আসছে না। তবুও সে প্রাণপন চেষ্টা করে নিজেকে রক্ষা করতে। অসহ্য যন্ত্রনায় সাম্মির মূখ দিয়ে গোঙ্গানীর শব্দ বেড় হচ্ছে। তার একটু আগেই সাম্মির এক নানা বাড়ীতে এসেছে। সবাই ঘুমিয়ে থাকার কারনে বাড়ীর আশেপাশে কেউ গোঙ্গানীর শব্দ শুনতে পারছে না। কিন্তু তখনি বাড়ীতে আসার ফলে।,সাম্মির ঐ নানা অস্পষ্ট ভাবে সেই শব্দ শুনতে পায়। কৌতহলবশত এক পা দুই পা করে এগিয়ে সাম্মির ঘরের কাছে যতই যাচ্ছে ততোই শব্দ বেশী হতে থাকে। ঘরের কাছে গিয়ে দেখতেপায় সাম্মি ও তার মামার কৃতি! তাঁর নানা মনে মনে ভাবে মনেহয় সাম্মির সম্মতিতেই এই কু-কর্ম হচ্ছে! তারপরও একটু দূরে গিয়ে জোড়ে বল্লো কি রে গোঙ্গাচ্ছিস কেন?  এই কথা শুনে সাম্মি ভাবতে লাগলো এবার মনেহয় নিস্তার মিলবে। নানার সাহায্যের আশায় যথাসম্ভব চেষ্টাকরে। তখন নানার একটু সন্দেহ হয়, সাম্মির যদি সম্মতি থেকে থাকে তাহলে সে শব্দ করতো না। তাই ঘরের কাছেগিয়ে দরজা দিতে থাকে, তখন সাম্মির মামা আরও বেশী ঘাবরে যায়!  কি করবে সে উঠতে পারে না। তাই দরজা খুলেদেয়। দরজা খোলার সাথে সাথেই, দেখতে পায় সাম্মির মূখ, হাত-পা বাধা। সাম্মি করুণ আকুতির চোঁখে নানার দিকে তাকিয়ে থাকে। সেই সাথে তাঁর চোঁখদিয়ে পানি পরতে থাকে। এটা সহ্য করতে না পেরে সাম্মির ঐ নানা, সাম্মির মামাকে সজোড়ে একটা থাপ্পর বসিয়ে দেয়। সাম্মির মামা হুরমুর করে সেই নানা পায়ে অপরাধীর বেশে লুটিয়ে পরে। অনেক গালাগালি করতে থাকে তার ভাতিজাকে। সাম্মির মামা তখন তাঁর চাচাকে বলে অস্তে কথা বলেন লোকজন শুনতে পারবে। আর এদিকে সাম্মি অঝড় ধারায় কেদেই চলছে। ঐ নানা আরও চেচিয়ে বলে চিৎকার করবো না তো কি করবো?  সাম্মির মামা তখন তারঁ ঐ চাচার কানের কাছে গিয়ে বলে, চিল্লাচিল্লি করেন না, চাইলে আপনিও যোগ দিতে পারেন!?, কিন্তু শর্ত একটাই কাউকে বলতে পারবেন না। এবার আরও ক্ষিপ্ত হয়ে আবার একটা চর বসিয়ে দিলো। তাপরও চাচাকে বল্লো ভেবে দেখতে পারেন!
মানুষজন জানলে আপনার কি লাভহবে?। বরং আপনাদেরই বেশী ক্ষতি!। তোমার বংশের সম্মান নিয়ে টানাটানি পরে যাবে!? ঐ নানা তখন মনেমনে ভাবতে থাকে, প্রস্তাবটাতো খারাপ নয়!! এরপর সেও সাম্মির কাছেগেলো। সাম্মি ও তারঁ মামা মনে করেছিল সাম্মিকে মনেহয়, উদ্ধার করতে এগিয়ে আসছে। কিন্তু না বলানেই কওয়া নেই, তাঁর গায়ের সব কাপড় খুলেফেলে সাম্মির উপর ঝাপিয়ে পরে!!  সাম্মি আরও ভয়পায়। মামা তখন সাম্মির কানের কাছেগিয়ে, ফিসফিস করে বলে, আরএকটু কষ্টকর মা!  তাকে সুজোগ না দিলে সবাইকে বলেদিবে তখন লঙ্কাকান্ড হয়েযাবে। সাম্মি তখনো কেদেই যাচ্ছে। কিন্তু সেটা কি আার নরপশুদের কাছে কিছুমনে হয়?  সাম্মির এর আগেই রক্তারক্তি হয়েগেছে। আবারও শুরুহলো তারঁ উপর অমানুশিক যৌন ও শাররীক নির্যাতন। এভাবে আরও একাধিক ব্যক্তি মিলে সাম্মির উপর নির্যাতন চালায়!!!
(চলবে)
প্রথম খন্ড দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

আপনার ফেসবুক একাউন্ট ব্যবহার করে মতামত প্রদান করতে পারেন। ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত দিতে ওয়েব সংস্করন দেখুন।ওয়েব সংস্করনে আরও অনেক কিছু অপেক্ষা করছে।আবারও আপনাকে ব্লগের পক্ষথেকে শুভেচ্ছা। ভাল থাকবেন সব সময়