views your Language

সোমবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৮

বিয়ে

বিয়ে শব্দটা আমার কাছে একটা অদ্ভুত শব্দ মনেহয়।এই অদ্ভুদ শব্দটার বদৌলতে কত অবৈধ কার্যকলাপ নিমেষেই বৈধতা পায়।বিয়ের কারনে অনেকে নিজের পরিবার পরিজন ছেড়ে নতুন একটি পরিবারে পরবাসী হয়ে সবাইকে আপন করে নতুন করে নতুন জীবন শুরু করতে চেষ্টা করে।অনেকে সেখানে সফলহয় অনেকে ব্যর্থহয়,অনেকে ব্যর্থহয়ে নিজেদের
পৃথিবীটা ওলোটপালোট হয়েগেছে,অনেকের নিজের মহামূল্যবান জীবন পর্যন্ত ধ্বংস হয়েগেছে।


বিয়ের আগে কোন মেয়ে বা কোন ছেলে দুজন পাশাপাশি হাটাহাটি করলেই সমাজে তার পরিবারের মাথাকাটার উপক্রম হয়েযায়।শাররীক সম্পর্ক স্থাপন করলেতো কথায় নাই।সমাজে তাকে ঘৃণার চোখেঁ দেখে।তাদের একঘরে করে জীবনটা বিষিয়ে তোলে।তখন তাদের আত্মহত্যা করা ছাড়া আর কোন উপায় থাকেনা।নারীদের কথা বাদেই দিলাম শাররীক সম্পর্ক করতেগিয়ে ধরা খেয়ে নিজেদের সম্মান ও সমাজের ভয়ে নিজের মূল্যবান জীবন নিজের হাতেই হত্যা করেছে অনেক পুরুষ।সেখানে নারীদের কথা বলাই বাতুলতা।তাদের কাছে আত্নহত্যা করা ছাড়া দ্বিতীয় আর কোন পথ খোলাথাকে না।কারন এরকম নষ্টা মেয়েকে সমাজে কোন কালেই কোন ক্রমেই গ্রহণ করেনি।যদিও দু'একটি ঘটনায় এর ব্যতিক্রম দেখাদিয়েছে,তারপরও কোন ভালো ফ্যামিলির বউ হয়ে যাওয়া ঐ নারীর পক্ষে সম্ভব হয়নি।

রবিবার, ২৫ নভেম্বর, ২০১৮

কতগুলো না

আমাদের জীবনে চলার পথে মুখোমুখি হতে হয় নানান সমস্যার। কিছু সমস্যার সমাধান করতে বা সমস্যায় না পড়তে দরকার ছোট্ট একটি শব্দ বলার। শব্দটি হলো ‘না’। আপনি হয়তো বিশ্বাস করতে পারবেন না, কিন্তু এই একটি শব্দ সঠিক জায়গায় ব্যবহার করলে আপনার জীবন হবে সুখ ও সাফল্যময়! এমনই কিছু ‘না’ এর ব্যবহার নিয়েই আজকের লেখাটা।
।মূর্খ লোকের সাথে   তর্ক করবেন
না , এরা আপনাকে তাদের লেভেলে নামিয়ে নিয়ে যাবে।
 
। অন্যেরা আপনার সম্পর্কে কি ভাবছে, আপনি একদম ভাববেন না , মনে রাখবেন সমালোচনা করা সহজ, কিন্তু আলোচনায় আসা খুব কঠিন।
। প্রশংসা পেয়ে আনন্দিত হবে না অথবা শত্রুর সমালোচনা দেখে বিচলিত হবেন না, দুটোই মূল্যহীন।
। পৃথিবীতে কেউ বিজি না , আসলে সব নির্ভর করে গুরুত্বের উপর। কাজেই যে আপনাকে গুরুত্ব দিচ্ছে, তাকে গুরুত্ব দিন, জীবন অনেক সুন্দর ও উপভোগ্য মনে হবে।

মঙ্গলবার, ৬ নভেম্বর, ২০১৮

কিছু সময়ের রাজনীতি

রাজনীতিতে শেষকথা কিছু নেই।সকালে এক কথা বিকালে আর এক কথা তো রাতে আরেক কথা।এজন্য জাতীয় পার্টির এরশাদ সবচেয়ে বেশী সমালোচিত হয়েছেন।অনেকে তাকে পাল্টিবাজ,বেইমান বলেছেন।দশম সংসদ নির্বাচনের সময় থেকেই এ অভিযোগ আরও বেশী তোলাহয়।সে সময় না না করেও নির্বাচনে অংশনেয় এরশাদের জাতীয় পার্টি।এর পরেও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত হন।বেশ কয়েকবার নিজ দলের মন্ত্রীদের পদত্যগ করার কথা বল্লেও,নিজে কখনো পদত্যাগ করেননি।রাজনীতিতে এসব মামুলি ব্যপার।

স্বাধীনতা বিরোধী দল বলে যাদের নিবন্ধন বাতিল করেছে,সেই জামাতের সাথে কাধে কাধ মিলিয়ে একসময় অন্দলন করেছে আওয়ামী লীগ।তাদের সাথে আজ দা-কুমড়া সম্পর্ক।অবাক হইনা,বঙ্গবন্ধু সরকারের মন্ত্রী ও সংবিধান প্রণয়ন কমিটির চেয়ারম্যান কামাল হোসেনের মত একজন প্রবিণ রাজনীতিবিদ যখন বিএনপি জামাতের সাথে জোট করে।একই কথা বলি,প্রথম বাংলাদেশের পতাকা উত্তলনকরি আ স ম আবদুর রব ও বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর বেলায়ও,যে কিনা নিজেকে শেখ মুজিবের সন্তান হিসেবে দাবি করে।শেখ হাসিনাও

বুধবার, ৩১ অক্টোবর, ২০১৮

৭২ রে বাকের ভাই

আজ ৩১ সে অক্টোবর, ২৯৪৬ সালের আজকের এই দিনে জন্মগ্রহণ করেন নীলফামারী-২ আসনের সংসদ,বাংলাদেশ সরকারের সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর।আজকে তিনি ৭১ পেরিয়ে ৭২ বয়সে পা রাখলেন।রুপমের ব্লগের পক্ষথেকে জনপ্রিয়,অভিনেতা,রাজনীতিবিদ আসাদুজ্জামান নূরকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

আসুন আসাদুজ্জামান নূর সম্পর্কে কিছু তথ্য জেনে নেই....

মঙ্গলবার, ৩০ অক্টোবর, ২০১৮

প্রশ্ন ফাঁসঃ দায় কার?

গত কয়েকবছর থেকে বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষা এমন কি চাকরির পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁসের হিড়িক পরেগেছে।প্রশ্ন ফাঁস রোধে সরকারের সকল পরিকল্পনা মহাপরিকল্পনা ভেস্তেগেছে।প্রশ্নফাঁস রোধে পরীক্ষার সময় ইন্টারনেট বন্ধকরার মত ঘটনা দেখাগেছে।তবুও প্রশ্ন ফাঁসের লাগামটেনে ধরা সম্ভব হয়নি।বরং দিন দিন প্রশ্নফাঁস আরও মহামারি আকার ধারন করেছে।সাম্প্রতি দেশের সর্বচ্চ বিদ্যাপিঠ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের "ঘ" ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নফাঁস নতুন করে ব্যাপক আলোচিত বিষয়।
প্রশ্নফাঁস সম্পর্কে জানতে হলে,সবার আগে জানতে হবে প্রশ্ন কারা তৌরি করেন?একটা দুধের শিশুওজানে,প্রশ্ন তৌরিতে সুনির্দিষ্ট কমিটি গঠন করাহয়।তারাই পরীক্ষার প্রশ্ন তৌরি করে।সন্দেহনেই প্রশ্ন তৌরিতে সকলধরনের নিরাপত্তা গ্রহণকরা হয়।তার পরেও কেন প্রশ্ন ফাসঁ হচ্ছে?প্রশ্ন থেকেই যায়।কথা হচ্ছে,প্রশ্ন প্রণয়ন কমিটি ছাড়া আর কারও পক্ষে প্রশ্ন সম্পর্কে জানার কোন কথা নাই।তবুও জানছে কিভাবে সম্ভব?এটাই সম্ভব হয়েছে।প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনায় প্রশ্ন প্রণয়ন কমিটির কোন না কোন সদস্য অবশ্যই জরিত আছে।তানা হলে কোন ভাবেই কখনই প্রশ্নফাঁস করা সম্ভব নয়।করন,প্রশ্ন প্রণয়ন কমিটি ছাড়া আর কেউ জানতে পারার কথানয়,কি কি প্রশ্ন পরীক্ষায় আসছে।তাহলে প্রশ্নফাঁস করা করছে?ধরুন,আপনি কোন

মঙ্গলবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৮

ব্যারিস্টার মইনুল গ্রেপ্তার-মাদুসা ভাট্টি এখন কি চরিত্রবান?

গত কিছুদিন থেকে বাংলাদেশের রাজনৈতিক,সামাজিক অবস্থার যা তা দশা।একাশদ জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে,নির্বাচনী জোট গঠন,জোট গঠন নিয়ে কাদা ছোড়াছুড়ি,ছোট দলের মধ্যে ভাঙ্গন।জোটবদ্ধদের সমাবেশ না করার অনুমতি।এসব ছিল বাংলার রাজনৈতিক ঘটনা।এর পরেই বাংলার রাজনৈতিক সামাজিক অবস্থায় কিছুটা প্রভাব পরে।

ঘটনার শুরু গত ১৬ অক্টোরব,সেদিন একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলের টকশোতে,কথা বলার একপর্যায়ে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্ঠা ও একটি ইংরেজী দৈনিকের সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি ব্যরিস্টার মইনুল ইসলাম,উপস্তিত সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টিকে"চরিত্রহীন"বলে।এতেই খেলা শুরু হয়েগেছে।

এই খেলা জমেগেছে।

মঙ্গলবার, ১৬ অক্টোবর, ২০১৮

কীভাবে দেখবেন ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা হাইভোল্টেজ ম্যাচ?

আর কয়েকঘণ্টা পর সৌদি আরবের জেদ্দা শহরের বাদশাহ আবদুল্লাহ স্পোর্টস সিটিতে মুখোমুখি হচ্ছে বিশ্ব ফুটবলের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুই দল ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা। দুইবারের বিশ্বকাপজয়ী আর্জেন্টিনা দলে নেই ফুটবল জাদুকর লিওনেল মেসি।

বিশ্বকাপে ব্যর্থতার পর তার মান-অভিমানের পালা এখনও শেষ হয়নি।
তবে পাঁচবারের বিশ্বজয়ী ব্রাজিল শিবিরে থাকবেন সুপারস্টার নেইমার। থাকবেন বাকী তারকারাও। তাই মেসির অভাবে ম্যাচের উত্তেজনা একেবারেই কমবে না। সৌদিতে ম্যাচটি ঘিরে শুরু হয়েছে ব্যাপক প্রস্তুতি। টিকিট কালোবাজারিও চলছে। ৩০ রিয়ালের টিকিট বিক্রি হচ্ছে ১০ গুণ দামে ৩০০ রিয়ালে! বাংলাদেশ সময় রাত ১২টায় শুরু হতে চলা এই হাইভোল্টেজ ম্যাচটি দেখবেন কীভাবে?

কবি রুদ্র মুহম্মদ শহিদুল্লাহর ৬২তম জন্মবার্ষিকী আজ

আজ  ১৬ অক্টোবর, মঙ্গলবার। তারুণ্য ও সংগ্রামের প্রতীক কবি রুদ্র মুহম্মদ শহিদুল্লাহর ৬২তম জন্মবার্ষিকী। বাংলাদেশের কবিতায় অবিস্মরণীয় এই কবির শিল্পমগ্ন উচ্চারণ তাকে দিয়েছে সত্তরের অন্যতম কবি-স্বীকৃতি। ১৯৯১ সালের ২১ জুন মাত্র ৩৫ বছর বয়সে অকালপ্রয়ান হয় এই কবির।

মহান এ কবির জন্মদিনে রুপমের ব্লগের পক্ষথেকে জানাই প্রাণঢালা অভিনন্দন

বুধবার, ১০ অক্টোবর, ২০১৮

ইমামের কথায়

বাবা মারা যাবার আজ দশবছর হতে চলছে।তখন থেকে সংসারটা মেয়েই চালায়।
এই রমজান মাসেই বাবা মারা যাওয়ায়,আমার কাছে রমজান মাসটা অনেক গুরুত্বপূর্ন।এজন্য সারাবছর মসজিদের ধারের কাছে না গেলেও।রমজান মাসে প্রতি ওয়াক্তে মসজিদে গিয়ে নামাজ পরি।এমনি এক জুম্মার দিনে ইমাম সাহেব বয়ান দিলেন,মাঝে মাঝে বাড়ীর মহিলাদের প্রসংশা করতে হয়।সেদিন বাড়ীতে এসে ইফতারের পর ভাত খাওয়ার পর মাকে বল্লাম আলহাম্দু্লইল্লা আজকে তরকারিটা দারুন হয়েছে।এটা শুনেই মা একটা মুচকি হাসিদিয়ে,ভাত তরকারির গামলা মাথায় ঢেলেদিয়ে বলছে,আজ সাতাশ বছর তোকে রান্না করে খাওয়াচ্ছি কোনদিনও বল্লিনা রান্না ভালোহয়েছে।যেমনি তোর চাচাত বোন রান্না করলো সেদিনেই প্রসংশার অভাব নাই।মা বলেই চলছে,এজন্য রুহির সাথে তোর এতো আলাপ!তাইতো ভাবি রুহির বাবার সংসার চলে না আর সে এত নতুন নতুন জামা কাপড় পায় কোথায়?এসব শুনতে শুনতে মনেমনে ইমাম সাহেবকে গালি দিচ্ছি আর বলছি রুহির সাথে ভাইবোনের সম্পর্ক ছাড়া আর কোন সম্পর্ক নাই।তার নতুন নতুন জামা কাপড়ের রহস্যও জানি না।

মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮

পিতা-মাতাঃ সন্তানের পরিনতি

চারদিক শুনশান কারও মূখে কোন কথানাই।সবাই নিরব নিস্তব্ধ দাড়িয়ে আছে কেউ কেউ মাঝে মাঝে ফিস ফিস করে এটা ওটা বলাবলি করছে।রফিক সাহেবের স্ত্রী ও এক বযস্ক মহিলা একটা ঘরে ঢুকছে।দরজার কাছে আসতেই রফিক সাহেবের স্ত্রী তার কাছথেকে চিরবিদায় নিচ্ছে।রফিক সাহেব স্ত্রীর হাতে হাত রেখে অনেক কিছুই বলতে চাইছে কিন্তু মুখদিয়ে কোন কথা বেরুতেই চাইছেনা,দুজনের চোখঁদিয়ে অঝড়ধারায় অশ্রু ঝড়ছে।বয়স্ক মহিলাটি রফিক সাহেবের স্ত্রীকে নিয়ে ঘরে ঢুকার পরেও ঘরের বাইরে রফিক সাহেবের পাড়া-প্রতিবেশী সহ আরও অনেকের সাথে তার শ্বাশুড়ীও দাড়িয়ে আছে।সবাই মনেমনে দোয়া দরুদ পরছে।বেশ কিছু সময় পর,যে যায়গাটা নিরব নিস্তব্ধ ছিল তা ক্রমেই কোলাহলপূর্ন হয়ে উঠল।বাইরে রফিক সাহেবের বড়ভাই নামাজের সময় না হলেও আজান দিচ্ছে কেউ কেউ আবার মধু খুজছে।রফিক সাহেব বুঝতে পারলো বন্ধ ঘরের ভিতর থেকে একটি সুখবর এসেছে,তার ও তার স্ত্রীর কোলজুড়ে পুত্র সন্তান এসেছে।এটা শুনেই রফিক সাহেব দোকান থেকে মিষ্টি এনে সবার মাঝে বিলিয়ে দিল।


এটাই ছিল রফিক সাহেব ও তার স্ত্রীর প্রথম সন্তান।সন্তন জন্মের পর হতেই রফিক সাহেব ও তার স্ত্রীর নিয়ন্ত্রিত জীবন শুরুহয়।চাকরির সুবাদে বাইরে থাকলেও রুটিন করে প্রতিদিন স্ত্রীও তার সন্তানের খবর নেয়।এদিকে তার স্ত্রীর সকল ভাবনাজুড়ে থাকে তার এক মাত্র পুত্র সন্তান।তাকে মানুষ করতে দিনরাত দুজনে কঠর পরিশ্রম করতে লাগলে।পুত্র সন্তানটির একটি ভালো নাম,রাশেদ রেখে মহা ধুমধামে আকিকা করা হল।রাশেদ একটু বড় হতেই অনেক খেলনার মালিক হয়ে গেল।ছোটবেলা থেকেই রাশেদ একটু জেদি স্বভাবের ছিল।সে যেটা নিতে চাইতো সেটা নিয়েই ছাড়ত।এনিয়ে তার বাবা-মাও কোন অক্ষেপ করতনা। তারা বলত তাদের এক মাত্রইতো সন্তান,তার যা কিছু করছে তা সবেইতো তার জন্য।

এমনি একদিন একদিন বাবা- মায়ের সাথে মেলায় গেল রাশেদ।মেলা একটা খেলনা সাইকেল দেখে লোভ সামলাতে পারলোনা,সেটা নিতেই মা-বাবার কাছে বায়না ধরল।রফিক সাহেব কিছু মনেনা করেই সাইকেলটা

শনিবার, ২৫ আগস্ট, ২০১৮

সন্তানকে সন্ত্রাসী বানানের ইচ্ছা

সব পিতা-মাতাই চায় নিজের সন্তানদের মানুষের মত মানুষ করতে।সবাই চায় তার সন্তান সমাজে যেন মাথা উচুকরে বাচেঁ।কোন কোন পরিবার তার সন্তানদের মানুষের মত মানুষ করতে পারলেও,অনেক পরিবারেই তাদের সন্তানদের মানুষ করতে পারেনা।তার পরেও চেষ্টার কোন ত্রুটি করেনা।অনেক সময় টাকা-অর্থকরি না থাকলে যতই চেষ্টা থাকুক না কেন ছেলে-মেয়েদের মানুষকরা মুশকিল হয়েপরে।তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে ব্যাতিক্রম ঘটে,অনেক টাকা-পয়সাওয়ালা মানুষের সন্তানেরা মানুষ হতে পারেনা,আবার অনেক গরিব গরিব ঘরের ছেলে-মেয়েরা এই সমাজে মাথা উচুকরে বাচেঁ।এতকিছুর পরেও গরিব পিতা-মাতারাও কিন্তু সন্তান মানুষ করার ইচ্ছা বা আশা ছেড়েদেয় না।

তেমনি একটি গরিব পরিবারের সন্তান মিলন,তৈয়ব আলী ও লিলি বেগমের ঘর উজ্জল করে মিলন যেদিন আসে,সে দিন সহ দুদিন আগে থেকেই তাদের ঘরে কোন খাবার দাবার নাই।এরই মাঝে তৈয়ব আলী- লিলি বেগমের প্রথম সন্তানের জন্ম।এর পরেও মিলনের পিতা-মাতা তাকে মানুষ করতে চেষ্টাকরে গেছে।শতকষ্ট হলেও মিলনকে স্কুলে ভর্তি করাসহ,স্কুলের সকল খরচাপাতি চালিয়ে আসছিল।মিলনকে মানুষ করতে লিলি বেগম মানুষের বাড়ীতে ঝির কাজ শুরু করে।

এভাবে চলতে থাকলে মিলনও স্কুলে মোটামুটি ভালোছাত্র হয়ে উঠে।সেটা দেখে তৈয়ব আলী ও লিলি বেগমের গর্বেবুক ভরে যায়,ও সন্তানের  ভালোর জন্য আরও কঠর পরিশ্রম করেতে থাকে।মিলন ষখন ক্লাস সিক্সে পড়ে তখন তার বাবা তৈয়ব আলী যেখানে কাজ করত,সেটা কোন এক কারনে বন্ধহয়ে যায়।এতে তৈয়ব আলী বেকার হয়েপরে।স্ত্রী লিলি বেগমের পক্ষে সংসার চালা সাথে ছেলের লেখাপড়ার খরচ জোগার করা কষ্টসাধ্য হয়ে পরে।মিলনও সেটা বুঝতে পারে।টাকা পয়সাওয়ালা মানুষের সন্তানেরা হয়তো ততোটা বুঝতে পারেনা,যতটা না অভাব-অনটনের মধ্য থাকা গরিব পরিবারের সন্তানেরা বুঝতে পারে।

মিলন ছোট-খটো কাজের একটা সন্ধান করে,কিন্তু সব গরিব ঘরের সন্তানের মত মিলনও ব্যর্থহয়।কাজ

শুক্রবার, ১০ আগস্ট, ২০১৮

মায়ের কম্পানি

চারদিকে পিতা-মাতার উপর সন্তানের অমানবিক নির্যাতন দেখতে দেখতে অনেক পিতা-মাতাই,নিজের সন্তানের উপর বিশ্বাস হারিয়ে ফেলছে।বৃদ্ধবয়সে যে ছেলে-মেয়েদের তাদের পিতা-মাতার দেখাশুনা করার কথা,তারাই জীবনের কঠিন ষেশ সময়ে পিতা-মাতাকে নিঃশ্বকরে বৃদ্ধাশ্রমে রেখে আসছে।এসব দেখতে দেখতে নির্ভরশীলতার পরিবর্তে,সন্তানের প্রতি অনির্ভরতার জন্মদেয়।
ছবিঃ প্রতিকি

আমি এমন একজন মাকে দেখেছি,যে কিনা শুরু থেকে নিজের সন্তানের উপর আস্থা হারিয়ে ফেলেছেন।এমনকি মুখফুটে পাড়া প্রতিবেশীদের কাছে তা বলতেও শুনেছি,এই ছেলে ভবিষ্যৎতে আমাকে ভরন-পোষণ দিবেনা এক কথায় দেখবেনা।যেখানে এখনো অনেক পিতা-মাতা বৃদ্ধ বয়সে,ছেলে সন্তানের উপর অস্থা রাখতে ছেলে সন্তান কামনা করে।সেখানে সেই মা তার ছেলে সন্তান ছোট থাকতেই,বুঝে গিয়েছেন বৃদ্ধ বয়সে সে তাকে কষ্ট দিবে,তাই সন্তানের উপর আস্থা হারিয়ে ফেলেছেন।